Avatar

আজ সব পথ মিশে গেছে শাহবাগ, দল-মত নির্বিশেষে সবাই আজ শাহবাগের পথে, যে ফেসবুক ব্লগ থেকে এই আন্দোলন শুরু তার পথ মনে হয় বেকে গেছে অন্যদিকে, গতকাল থাবা বাবা(রাজিব হায়দার) যখন তার শেষ যাত্রা পাড়ি দিলেন তখনো আমরা কে নাস্তিক কে আস্তিক তাই নিয়ে ফেসবুক ব্লগে তুমুল আলোচনা চালিয়ে গেলাম, মানুষ হিসেবে কেউ তাকে চিনলাম না। কাল যত লোককে আমি থাবা বাবা নাস্তিক বলে প্রচার করতে দেখছি আমি বিশ্বাস করি না সবাই শিবির করে। এর মধ্যে সাধারন অনেক ধার্মিকও শামিল ছিল, শিবির-এর প্লান সফল তারা অনেক সাধারন ধার্মিককেও ফাদে ফেলে দিলো।

আমাদের দেশে ধর্ম কে মানুষ জ্ঞান দিয়ে মানেনা আবেগ দিয়ে মানে, ধর্মের কথা শুনলে আমদের সব যুক্তি বোধ থেমে যাই আমরা আবেগে গদ্গদ হয়ে অনেক অলিক কথাও মেনে নিই, কখনই সেটা নিয়া প্রশ্ন করার যোগ্য নিজেকে মনে করি না। হায়রে ধর্মপ্রাণ মানুষ! ধর্মে নাকি বলা হইসে তুমি আশরাফুল মাখলুকাত। তাহলে তুমি তোমার কেতাব মতে সৃষ্টির সেরা জীব হয়েও ধর্মের নাম মুখে আনলেই তুমি কেঁচো হয়ে যাও ক্যান? কেউ তোমার ধর্ম নিয়ে একটু কটু-কথা বললেই তোমার সহিংস হয়ে উঠ কেন? এতই যদি সৃষ্টির সেরা হওয়ার গর্ব তোমার, তাহলে নাস্তিকের কলমের সাথে তলোয়ার নিয়া যুদ্ধ করতে আসা ক্যান?

দুনিয়ার সব ধর্মই নাকি শান্তির ধর্ম, অথচ দুনিয়ার অশান্তির সিংহভাগের জন্যই দায়ী ধর্ম। ধর্ম এমন একটা পণ্য যা বেচে অফুরন্ত লাভ। তাই যুগে যুগে ধর্ম ব্যবসা সবচাইতে বড় ব্যবসা। আজ জামাত-শিবির এর মত এত বড় ধর্ম কারবারিদের দেখেও এ দেশের সাধারন মুসলিমদের শিক্ষা হয় না। তারপর ও নামের শেষে ইসলামের নাম দেখেই ওগো পা চাটতে চলে যাই। আর আমরা ওদের মুখোশ টেনে ধরলেই হয়ে যাই “ব্যাটা নাস্তিক” তলোয়ার নিয়া দৌড় দাও নাস্তিকের কল্লার জন্য। 

এই যে ফেসবুক ব্লগে ধর্ম কে নিয়ে আমরা লিখি ধর্ম নিয়া তর্ক করি ধর্মের কুপ্রভাব নিয়ে লিখে যাই এগুলো কাদের জন্য? এই গুলো লিখলে আমাদের কেউ এক টাকাও দ্যায় না, সাধারন মানুষের মনজগত কে নাড়া দিয়ে তাদের ধর্ম নিয়া আর একটু  নাড়াচাড়া করতেই তো আমরা উৎসাহিত করি, এক নাস্তিক তোমার ধর্ম নিয়া খারাপ কথা কইসে তাহলে তুমি ভাই তোমার কিতাব খুলে একটু পড়ে আসো না, নাস্তিক কোন খারাপ কথাটা কইসে, আর ধর্মে সেটার ভাল ব্যাখ্যাই বা কি? অথচ তুমি ভাই তা না কইরা নাস্তিকের মা-বোনের মানহানির করার আক্রোশে উন্মত্ত হই। আর তাতেও যখন শান্তি মিলে না, তলোয়ার নিয়া দিলা দৌড় – ব্যাটা নাস্তিকের কল্লা ফালামু।

ধর্মের সত্যিকারের ক্ষতি যদি কেউ করে থাকে তো সে হল ওই ব্যাটা ধর্মান্ধ আস্তিক — যে মানুষের লাশ সামনে নিয়া বিচার করতে বসে — মানুষটা আস্তিক না নাস্তিক। তাই আস্তিক ভাইদের বলব, আসেন ধর্মকে বুজতে শিখি, ধর্মের বইকে শিকেই ঝুলিয়ে না রেখে তাকে আমরা পড়ি, বারবার পড়ি, তারপর ধর্ম নামক আফিম ছেঁড়ে আবার আমরা মানুষ হই।

0 Shares

মামুন হিমু এর ব্লগ   ৩৩ বার পঠিত