গিয়াসুদ্দিন

part8
 

হোসেন নিজেই কারবালা যুদ্ধ অনিবার্য করে তোলেন এবং অকালে মৃত্যুবরণ করেন

 

সে দিনটি ছিল ৬৮০ খ্রিস্টাব্দের ১০ই অক্টোবর (আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ৬১ হিজরির ১০ই মহরম)। আর একটি মত হলো তারিখটি ছিল ১০ই অক্টোবর নয় ১৩ই অক্টোবর। এজিদের সৈন্যবাহিনীতে সৈন্য সংখ্যা কতো ছিল তা নিয়েও অনেক মতভেদ আছে। তবে সকলেই একমত যে সৈন্য সংখ্যা ছিল কমপক্ষে তিন হাজার এবং সর্বাধিক দশ হাজার। উভয়পক্ষের সৈন্যসংখ্যা যাই হোক না কেন, কারবালা প্রান্তরের সেই যুদ্ধটা ছিল একেবারেই অসম যুদ্ধ। স্বভাবতই ওই যুদ্ধে হোসেন পরাস্ত হয়েছিলেন এবং তাঁর পক্ষের সকল সৈন্যই নিহত হয়েছিলেন। আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে হোসেনের সঙ্গে সৈন্যসংখ্যা ছিল সত্তুর জন থেকে একশো দশ জন। হোসেনের প্রতিরোধ করার শক্তি যখন নিঃশেষিত এবং তিনি যখন ক্ষত-বিক্ষত ও রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েছেন তখন সিমার নামের একজন সেনাপতি তলোয়ারের আঘাতে তাঁর শিরচ্ছেদ করেন এবং তাঁর মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গেই কারবালা যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে, সমাপ্তি ঘটে ইতিহাসের একটি করুণ অধ্যায়ের।

কারবালা যুদ্ধের যে সব বর্ণনা শোনা যায় তাতেও লক্ষ করা যায় একটা বর্ণনার সঙ্গে আর একটা বর্ণনার আকাশ-পাতাল বিভেদ। তার থেকে এটা প্রমাণিত হয় যে কারবালা যুদ্ধের ওপর মুসলিম ঐতিহাসিক এবং গল্পকারগণ তাঁদের লেখায় এজিদের বাহিনীর বিরুদ্ধে যে নিষ্ঠুরতা, নির্মমতা, নৃশংসতা, পৈশাচিকতা, বর্বরতা এবং অমানবিকতার কথা লিখেছেন তার অধিকাংশই তাঁদের মনগড়া। এটা হওয়ার কারণ হলো এইসব লেখকগণ কারবালা যুদ্ধের ইতিহাস লেখার মনোভাব নিয়ে লিখছেন এমনটা নয়, তাঁরা লিখেছেন এটা প্রতিষ্ঠিত করার জন্য যে ইমাম হোসেন ইসলামের নীতি ও আদর্শকে রক্ষা করার জন্য মুসলমানদের সবচেয়ে বড় শত্রু এজিদের বিরুদ্ধে কারবালা প্রান্তরে যুদ্ধ করে আত্মাহুতি দিয়েছেন। স্বভাবতই তাঁদের লেখা ইতিহাসে এবং গল্প-উপন্যাসে যেমন অমিলের ছড়াছড়ি দেখা যায়, তেমনি তাঁদের লেখায় কারবালা যুদ্ধের সত্যিকার ইতিহাসের পরিবর্তে উঠে এসেছে বিকৃত, অর্ধসত্য এবং অসত্য ও মিথ্যা ইতিহাস। তাঁরা কতটা আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে কারবালা যুদ্ধের মনগড়া ইতিহাস রচনা করেছেন তা বুঝবার সুবিধার্থে দুটো লেখা থেকে কয়েকটি  বিবরণ এখানে  উদ্ধৃত করা হলো।

“…নবীজীর প্রাণের নাতি বারবার অনুরোধ করলেন- তোমরা নদী তীর বন্ধ করো না। আমাদের পানি দাও। আমরা সকলেই অত্যন্ত পিপাসার্ত, আমাদের প্রাণ ওষ্ঠাগত, আমরা চরম পিপাসাতে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই ধরাশায়ী হয়ে যাবো। তোমরা আমাদের জল দাও। …জানালেন সকরুণ প্রার্থনা- আমাকে ও আমার পুরুষকুলকে জল দিতে হবে না, তোমরা আমাদের মহিলাদের বাঁচাও, তাদের একটু জল দাও। …তারা তোমাদের মা বোনদের মতোই অবলা, নিরপরাধ। তাদের একটু জল দাও, তারা পিপাসাতে বড়ই কাতর স্বরে ছটফট করছে। বাঁচার মত একটু জল দাও। …আমাদের শিশুদের একটু জল দাও, তারা চরম পিপাসায় তাদের মায়ের কোলে চিৎকার করছে। তারা কিছুক্ষণের মধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়বে।

…মহাত্মা হোসেন আকুল কণ্ঠে, ব্যাকুল চিত্তে আকাশ-পাতাল ভেদ করছেন, তখনও নরাধমদের বুকের কোণে এক বিন্দুও করুণার উদ্রেক হয় নি, তখন তারা অট্টহাসিতে মশগুল।

…ইমাম শত্রুপক্ষের নিকট শিশুদের জন্য সামান্য পানিপ্রার্থী হওয়ার পর শত্রুপক্ষের অগণিত তীর ইমামের শিবিরে ও লোকজনের ওপর পড়তে আরম্ভ করলো। এইবার ইমাম হোসেনের ১০ বছরের ভ্রাতুষ্পুত্র কাসেম শাহাদাত বরণ করেন। পরে পিপাসার্ত ইমাম পুত্র আসগরকে কোলে নিয়ে পানির জন্য সামান্য অগ্রসর হওয়া মাত্রই আসগরও তীরবিদ্ধ হলেন। এইভাবে একের পর এক শিবিরের প্রায় সকলেই মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লেন। পিপাসার্ত ইমাম সকলের শেষে নদী তীরে যাওয়ার চেষ্টা করলে শত্রুকুল তাঁকে ঘিরে ফেললেন। তিনিও শরবিদ্ধ হয়ে ক্ষুধায় পিপাসায় অর্দ্ধমৃত অবস্থায় ভূপাতিত হলে নিষ্ঠুর পাপিষ্ঠ সিমার ইমামের শিরচ্ছেদ করতে উদ্যত হলে ইমাম তাকে তাঁর গলার পরিবর্তে ঘাড়ের উপর আঘাত হানতে নির্দেশ দেন। এইভাবে ১০ মহরম কুখ্যাত সীমার কর্তৃক একের পর এক ৭০ জনই শাহাদাত বরণ করেন।”

(দ্রঃ উমাইয়া খেলাফত, ড.ওসমান গণি, পৃ- ৪৮-৫২)

 

ইমাম হোসেনকে নিয়ে লেখা ওই একই ঘটনায় আর একটি বিবরণ এরূপঃ

“… Hussein ibn Ali told Yazid’s army to offer him single battle, they gave his request. He killed everybody that fought him in single battles. He frequently forced his enemy into retreat, killing a great number of opponents. Hussein and earlier his son Ali al – Akbar ibn Husayn were the two warriors who penetrated and dispersed the core of ibn Sa’ad army (Qualb – e -Lashkar), a sign of extreme chaos in traditional warfare.

Hussein advanced very deep in the back ranks in the Syrian army when the enemies stood between him and  the tents he shouted: ‘ woe betide you oh followers Abu Sufyan ibn Harb’s dynasty! If no religion ever been accepted by you and you have not been fearing the resurrection day then be noble in your world that is if you were Arabs you clam.

Then his enemies evaded back toward him. They continuously attacked each other until his numerous injuries caused him to stay a moment. At this time he was hit on his forehead with a stone. He was cleaning blood from his face while he was hit on the heart with arrow and said: In the name of Allah and by Allah and on the messenger of Allah.’  Then he raised his head up and said: ‘Oh my God! You know that they are killing a man that there is son of daughter of a prophet on the earth except him.’ He then grasped and pulled the arrow out of his chest, which caused heavy bleeding.

He became very weak and stopped fighting. The soldiers approaching him give up confrontation, seeing his position. One soldier, however, walked up to Hussein and hit him his on his head with his sword.

… Hussein got on his horse and tried to leave, but Yazid’s army continued to pursuit. …

Omar bin Sa’ad ordered a man to dismount and finish the job. … then Shimr ibn Dhiljawshan dismounted his horse and cut Hussein’s throat with his sword while Hussein was prostrating to God. Just before his throat was about to be cut, Hussein asked Shimr ibn Dhiljawshan, “Have you done your prayers today?

(Source: Wikipedia).

উপরের দুটি বর্ণনা কারবালা প্রান্তরে ১০ই মহরমের দিনের হোসেনের ভূমিকাকে কেন্দ্র করে। কিন্তু দুটি বর্ণনার মধ্যে কতো প্রভেদ? বস্তুত কোনো মিলই নেই। এরূপ অসংখ্য দৃষ্টান্ত দেওয়া যেতে পারে। এখানে আর একটি দৃষ্টান্ত দেওয়া হলো। এটা কারবালা যুদ্ধ পরবর্তী একটি ঘটনাকে ঘিরে। ড. ওসমান গণি লিখছেন তাঁর উক্ত পুস্তকে,

“পরে ৭০টি কর্তিত মস্তক এবং স্ত্রীলোক ও শিশু সন্তানদের বন্দি অবস্থায় কুফায় উবাইদুল্লাহর নিকট প্রেরণ করা হলো। যখন রসুলে আকরমের দৌহিত্র ইমাম হোসাইনের রক্তাক্ত শির উবাইদুল্লাহর পদপ্রান্তে হাজির করা হলো, তখন কুফার আকাশে-বাতাসে শুধু একটিই রব প্রতিধ্বনিত হচ্ছিল- হায় হোসেন, হায় হোসেন। অসতী নারীর জারজ সন্তান জিয়াদের পুত্র সমগ্র মনুষ্যকুলের মধ্যে সাক্ষাৎ-শয়তান ইবলিস- উবাইদুল্লাহ অতি তাচ্ছিল্যভাবে যখন ইমামের পবিত্র ছিন্ন মস্তককে একটি ছড়ির দ্বারা নাড়াচাড়া করছিলেন, তখন একজন বৃদ্ধ সাহাবী গগণভেদী আর্তনাদ করে বলে উঠলেন-

ধীরে, ওহে ধীরে! এইটি হযরতের দৌহিত্র, আল্লাহর কসম, আমি স্বচক্ষে রসুলে করিম হযরত মহম্মদ (দঃ) এর পবিত্র মুখদ্বারা এই ওষ্ঠদ্বয়ে বারবার স্নেহ-চুম্বন করতে দেখেছি। বৃদ্ধের মুখদ্বারা এই কথা সজোরে উচ্চারিত সঙ্গে সঙ্গেই দুরাত্মা উবাইদুল্লাহর শরীর ভূমিকম্পের মত প্রকম্পিত হয়ে উঠেছিল, সত্যের ঘোষণা এমনি অনিবার্য। তাই আজিও ইয়াজিদ, উবাইদুল্লাহ, ওমর ও সীমার প্রমূখ নরাধমদের ওপর সমগ্র মনুষ্য জগতের অভিসম্পাত শ্রাবণের বারিধারার মত ঝরছে। …পরে নরাধম উবাইদুল্লাহ হোসেনের ছিন্ন মস্তক ও অন্যান্য পরিজনবর্গকে রাজধানী দামেস্কে প্রেরণ করলে ইয়াজিদ ভীত সন্ত্রস্ত অবস্থায় অতিসত্বর ছিন্ন মস্তক প্রত্যর্পণ করেন, এবং কারবালা প্রান্তরে সকলকে সমাধিস্থ করা হয়। জীবিত শিশু ও স্ত্রীলোকগণকে ইয়াজিদ সসম্মানে মদিনায় প্রেরণ করেন।”

(দ্রঃ উমাইয়া খেলাফত, ড.ওসমান গণি, পৃ:৫২)

কারবালা প্রান্তরে ১০ই মহরমের ওই বিয়োগান্ত ঘটনার পরের দৃশ্যের বিবরণ অন্য একটি লেখায় এ রকম- কুফায় হোসেনের ছিন্ন মস্তক সহ তাঁর পরিবারের লোকজনদের নিয়ে পৌঁছানোর পর আলীর কন্যা তথা হোসেনের ভগ্নী জয়নব কুফাবাসীদের বলছেন-

“Oh! People of Kufa! Oh deceitful renege people! Do you weep? So let tears not be dried and let groans not be finished. … Beware, such a bad preparation you have made for yourself that Allah became furious of you and you will be at punishment for ever. Do you weep and cry?  yes, by Allah , do weep numerously and do laugh less! Since you brought its shame and fault on yourself and you will not be cleanse forever.”

বন্দিদের দামেস্কে নিয়ে যাওয়ার পর সূত্রটি লিখছে,

“(Zaynab) Gave a famous speech in which she denounced Yajid’s claim to be the caliphate and eulogized Hussein’s uprising.”

এজিদের (ইয়াজিদের) প্রাসাদে বন্দীদের কতদিন আটকে রাখা হয়েছিল এবং বন্দীগণ কীরূপ আচরণ করেছিলেন সে বিষয়ে যে বিবরণ দেওয়া হয়েছে তা এই রকম-

“The  prisoners were held in Damascus for a year, some prisoners died of grief, most notably Sukayna bint Husayn. The people of Damascus began to frequent the prison, and Zaynab and Ali ibn al-Husayn used that as opportunity to further propagate the message of Huseein and explain to the people the reason for Hussein’s uprising. As public opinion against Yazid began to foment in Syria and part of Iraq, Yazid ordered their release and return to Medina, where they continued to tell the Hussein’s cause.

(Wikipedia).

কারবালা যুদ্ধের পরবর্তী ঘটনাবলী নিয়ে উক্ত দুটি বিবরণের মধ্যে কোনো সাযুজ্যই নেই তা বলা বাহুল্য। উইকিপিডিয়া যে বিবরণ লিপিবদ্ধ করেছে তা যে প্রায় সম্পূর্ণই মনগড়া তা সাধারণ বুদ্ধিতেই বোধগম্য হয়। নবীর দৌহিত্র হোসেনের প্রতি যাঁদের গভীর ভালবাসা ও শ্রদ্ধা ছিল তাঁদের মনের গভীরে এজিদের সৈন্যদের প্রতি ভয়-ভীতিও যে ছিল সে কথাও খেয়ালে রাখা প্রয়োজন। সেই ভয়-ভীতি উপেক্ষা করে সবাই হোসেনের ছিন্ন মস্তক এবং পরিবারের লোকজনদের দেখতে ব্যাপক মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়েছিল এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়।

দ্বিতীয় দাবি হলো রাজধানী দামেস্ক শহরে কারাগারে দলে দলে মুসলমানরা হোসেনের পরিবারের সদস্যদের দেখতে ভীড় করেছেন এবং সেই লোকজনদের সামনে মনের সুখে বা মনের দুখে হোসেনের পরিবারের লোকেরা এজিদের সমালোচনা করেছেন এবং হোসেনের প্রশংসা করেছেন আর এজিদ ও তাঁর সৈন্য-সামন্ত সবাই চুপচাপ দেখেছেন। ওই বিবরণে আরও আছে যে, কারাগার থেকে হোসেনের পরিবারের সদস্যদের প্রচারে সিরিয়ায় এবং ইরাকের বিভিন্ন জায়গায় এজিদের বিরুদ্ধে অসন্তোষ ও জনরোষ বাড়তে শুরু করায় এজিদ ভীষণ ভীত হয়ে পড়েন এবং তাঁদেরকে মুক্তি দিয়ে মদিনায় পাঠিয়ে দেন। এইসব দাবিগুলি শুধু অসারই নয়, গল্পের গরুর গাছে ওঠার মতোই হাস্যকর এবং কাল্পনিক। অবশ্য হোসেনের ছিন্নমস্তকসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের কারবালা থেকে কুফা এবং কুফা থেকে দামেস্কে নিয়ে যাওয়া এবং তারপর এজিদের ভূমিকা সম্পর্কে ড.গণির বিবরণের মধ্যে কিছুটা সত্যতা রয়েছে। ওবাইদুল্লাহ সম্পর্কে তাঁর উচ্চারিত বিশেষণগুলি শালীনতার সীমা লঙ্ঘন করলেও এজিদের ভূমিকা প্রসঙ্গে যেটা বলেছেন তাতে ইতিহাসের প্রতি দায়বদ্ধতার কিছুটা ছাপ আছে। এজিদ হোসেনের পরিবারের সদস্যদের সাথে যে ব্যবহার প্রদর্শন করেছেন তাতে তাঁর মহানুভবতার ছাপ রয়েছে। কোনো মুসলিম ঐতিহাসিক যদি তা স্বীকার করেন তবে তা মুসলিমদের পক্ষে খুবই অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু ড.গণি ওবাইদুল্লাহ সম্পর্কে যা লিখেছেন তা সর্বৈব অসত্য ও আক্রোশমূলক। হোসেনের ছিন্নমস্তক নিয়ে ওবাইদুল্লাহ যে পৈশাচিক আচরণ করেছেন বলে তিনি দাবি করেছেন তাতে প্রমাণিত হয় যে হোসেনের প্রতি ওবাইদুল্লাহর মনে অশেষ ক্রোধ ও ঘৃণা যুগযুগব্যাপী সঞ্চিত ছিল। কিন্তু এটা কতোটা সত্য তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। বরং হোসেনের প্রতি অনেকটা উদার ও সহানুভূতিশীল ছিলেন এমন কথায় জানাচ্ছে অন্য একটি সুত্র, যেটা মুসলিমদের দ্বারা পরিচালিত। সূত্রটি লিখছে,

“… Upon learning that his army had succeeded to lay a siege around the Imam’s camp, Governor Ibn Ziyad sent additional military units to Karbala and appointed Umar Ibn Sa’ad in charge. Imam Husain (a.s.) opened a dialogue with Umar Ibn Sa’ad and convinced him to lift the siege so that the Imam with his family and companions could leave Iraq. Umar Ibn Sa’ad liked the Imam’s proposal and sent a message to Governor Ibn Ziyad notifying him about the results of the talks with Imam Husain (a.s.). Ibn Ziyad also found the Imam’s proposal acceptable. However before agreeing to it officially, Shimr Bin Dhil-Jawshan, opposed it strongly. As a result Ziyad wrote a letter to Umar Ibn Sa’ad commanding him to either go to war with Imam Husain (a.s.) or be relieved of his duties as commander of the army and Shimr would not only replace him but despatch Ibn Sa’ad’s head to Kufa.

(www.al-islam.org/short/karbala.htm)

এখানে যে ইবন জিয়াদের কথা বলা হয়েছে তিনিই হলেন কুফার নবনিয়ুক্ত গভর্নর ওবাইদুল্লাহ। সূত্রটি বলছে তিনি হোসেনকে মক্কায় ফিরে যেতে দিতে তিনি সম্মত ছিলেন, কিন্তু সীমারের তীব্র আপত্তির কারণে তাঁকে (হোসেনকে) সে সুযোগ দিতে পারেন নি। এই ঘটনা থেকে এটা প্রতীয়মান হয় না যে হোসেনের ছিন্নমস্তককে অসম্মান ও অপমান করার নিকৃষ্ট মনোভব ওবাইদুল্লাহ পোষণ করতেন। ওবাইদুল্লাহর নেতৃত্বাধীন বাহিনীর হাতে হোসেন নির্মমভাবে নিহত হয়েছেন, সুতরাং ওবাইদুল্লাহ একজন নিকৃষ্ট ও নিচু প্রবৃত্তির মানুষ- এই তথ্যটা বা কথাটা ধর্মান্ধ মুসলমানদের যতোটা স্বস্তি দেয়, ঠিক ততোটাই অস্বস্তি দেয় তার উল্টো কথাটা। তাই ড.গণি এজিদ সম্পর্কে যা লিখেছেন এবং উক্ত ওয়েবসাইটটি ওবাইদুল্লাহ সম্পর্কে যা লিখেছে তা ধর্মান্ধ মুসলমানদের কাছে খুবই অস্বস্তিকর। এইসব অস্বস্তিদায়ক তথ্যগুলি আধুনিকযুগের মুসলিম ঐতিহাসিক ও লেখকগণ সর্বতোভাবে চেষ্টা করে থাকেন আড়াল করার বা গোপন করার কিংবা খণ্ডন করার। কিন্তু তা সম্ভব নয় কারণ, আরবের প্রথমযুগের ঐতিহাসিকগণ যেসব ইতিহাস লিখে গেছেন তাতে তাঁরা কোনো তথ্যই গোপন করেন নি তা যতোই মুসলিমদের পক্ষে অস্বস্তিকর হোক না কেন। সেই ঐতিহাসিকদের মধ্যে আল তাবারি হলেন একজন। আল তাবারি লিখেছেন যে এজিদ হোসেনের ছিন্নমস্তক দেখে ভীষণ মর্মাহত হয়েছিলেন। তিনি তাঁর সেই ছিন্ন মস্তকসহ অন্যান্য সকল মস্তকগুলি মর্যাদার সঙ্গে সমাধিস্থ করার নির্দেশ দেন এবং সসম্মানে হোসেনের পরিবারবর্গকে মদিনায় পাঠাবার ব্যবস্থা করেন। আল তাবারিসহ সেইযুগের ঐতিহাসিকগণ যাঁরা যথাসম্ভব সত্য ইতিহাস লিখে গেছেন সেই ইতিহাস গ্রন্থগুলি পরবার্তীকালে নষ্ট করে ফেলা হয়। তাঁদের লেখা ইতিহাসকে খণ্ডন করে অনেক ইতিহাস ও সমালোচনা লেখা হয়েছে। এইসব বই ও সমালোচনামূলক লেখাগুলি থেকে প্রথমযুগের ঐতিহাসিকদের লেখা অনেক তথ্য পাওয়া যায়। ফলে আলি মহান আর মাবিয়া নিকৃষ্ট এবং হোসেন মহান আর এজিদ নিকৃষ্ট বলে তুলে ধরার বহু শতাব্দী ধরে হাজার চেষ্টা সত্বেও মাবিয়া ও এজিদের মধ্যে যে ভাল গুণাবলীগুলি ছিল তা মুছে দেওয়া যায় নি। এবং এই কারণে হাজার চেষ্টা করেও ইসলাম ধর্ম এবং ইসলামি সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা ও তার প্রসারের ক্ষেত্রে যে ব্যাপক বলপ্রয়োগ, খুন-সন্ত্রাস, নারী ধর্ষণ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে তা চাপা দেওয়া যায় নি।

এ প্রসঙ্গ থাক, ফিরে যাওয়া যাক কারবালার ইতিহাসে।

কারবালার যুদ্ধের পরবর্তী ঘটনায় যাওয়ার আগে আরও একবার যুদ্ধের প্রাকমূহুর্তের ঘটনার ওপর দৃষ্টিপাত করা আবশ্যক। ইতোমধ্যেই সেই অধ্যায়ের পরিস্থিতি নিয়ে কিছু আলোচনা করা হয়েছে। সেই আলোচনায় আমরা দেখেছি যে হোসেন যুদ্ধ এড়ানোর জন্য যথাসাধ্য প্রয়াস করেছেন এমন দাবি করেছেন ড.ওসমান গণি। তিনি লিখেছেন যে হোসেন এজিদের সেনাপতিদের তিনটি গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব দিয়েছিলেন যা মেনে নিলে কারবালা প্রান্তরে যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হতো না। প্রস্তাব তিনটি কী কী তার উল্লেখ উপরে করা হয়েছে। সেই প্রস্তাবগুলি প্রত্যাখান করে এজিদের সৈন্যবাহিনী ফোরাত নদীর জল বন্ধ করে দিয়ে এজিদের বাহিনীকে অবরোধ করা হয় তখন হোসেন পিপাসার্ত শিশু ও নারীদের জন্য হোসেন সকলের কাছে এক ফোঁটা জলের জন্য বারবার কাতর অনুরোধ করেছেন, প্রার্থনা করেছেন, কিন্তু এক ফোঁটা জল না দিয়ে এজিদের বাহিনী সবার বুকে তীর নিক্ষেপ করে সবাইকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছেন। এক্ষেত্রে নরাধম ও পৈশাচিকের দল শিশুদেরও রেহাই দেয় নি। এ সব বিবরণের মধ্যে দিয়ে যা বলা হয়েছে তা হলো এজিদের পরিকল্পনা ও নির্দেশই ছিল হোসেনকে হত্যা করা এবং প্রকৃতিগতভাবে এজিদ এবং তাঁর নিযুক্ত গভুর্ণর ওবাইদুল্লাহ ও প্রধান সেনাপতি ওমর বিন সা’দ প্রমুখরা প্রত্যেকে ছিলেন ভয়ঙ্কর নিষ্ঠুর,বর্বর ও পিশাচ। এজিদ হোসেনকে হত্যা করার জন্য বহু পূর্বেই সংকল্প করেছিলেন এমন দাবি করেছে ‘বিষাদ সিন্ধু’র রচয়িতা মীর মোশারফ হোসেন। তিনি লিখেছেন,

“যদি আমি মাবিয়ার পুত্র হই, তবে হাসান-হোসেনের বংশ একেবারে নিপাত না করিয়া জগৎ পরিত্যাগ করিব না। শুদ্ধ হাসানের মৃতদেহ দেখিয়াই যে, সে মহাগ্নি নির্বাপিত হইবে, তাহা নহে; হাসানের বংশ মধ্যে সকল মস্তক দ্বিখণ্ডিত করিয়াই যে এজিদ ক্ষান্ত হইবে তাহাও নহে। মোহাম্মদের বংশের একটি প্রাণী বঁচিয়া থাকিতে এজিদ ক্ষান্ত হইবে না; তাহার মন মনোবেদনাও হইতে বিদুরিত হইবে না।”

(পৃ: ৩২)

এই সব দাবি সত্যি হলে তবে সবার লেখা ইতিহাসে বা উপন্যাসে এগুলির সমর্থন বা উল্লেখ থাকত। কিন্তু না, পাওয়া যায় না। শধু তাই নয়, এর বিপরীত বিবরণই আমরা দেখতে বিভিন্ন সূত্রের লেখায়। এর কিছু প্রমাণ অন্য ঘটনার ক্ষেত্রে আমরা উপরের আলোচনায় দেখেছি। এবার আমরা দেখবো ড.গণি ও মীর সাহেবের দাবী কতো অসার এবং মনগড়া তা অন্য সূত্রের বিবরণ থেকে যে সূত্রটিরও মুহাম্মদ এবং হোসেনের প্রতি অন্ধবিশ্বাস ও আনুগত্য বিদ্যমান। এই সূত্রটি দাবী করেছে যে, এজিদের সৈনিবাহিনী যখন হোসেনের গতিরোধ করে তখন তিনি দুটি কথা বলেছিলেন- আমি কুফার মানুষদের আহবানে কুফা যাচ্ছি, আমাকে তোমরা যেতে দাও, যদি কুফার মানুষ আমাকে না চায় আমি ফিরে আসব। আর আমাকে যদি কুফায় যেতেই না দাও তবে অবরোধ তুলে নাও, আমি এখান থেকেই মক্কা ফিরে যাচ্ছি। এর বাইরে কোনো কথা বলেন নি বা প্রস্তাব দেন নি। সূত্রটি কী লিখেছে দেখা যাক,

“The enemy army blocked the camps of Imam Husain (a.s.) from advancing. Tension started to rise between the two. The Imam addressed the enemy explaining to them his motives for going to Kufa, that it was in response to the invitation of the people. He even showed them a bagful of letters he received from Kufa. Hur said that he and his men were not the writers of those letters. Imam told them that if they did not like him to advance with the journey, he was prepared to return to Hijaz.

(www.al-islam.org/short/karbala.htm)

ইমামের এই কথা শুনে সৈন্যদলের প্রধান ‘হুর’ ইমামকে অকর্কশ ভাষায় জানালেন তাঁর প্রতি কী নির্দেশ রয়েছে গভর্নর ওবাইদুল্লাহর। সেই নির্দেশে তাঁকে (হোসেনকে) হত্যা করার আদেশ ছিল না।

‘হুর’ ইমামকে কী বলেছিলেন তা তাঁর কথাতেই শোনা যাক-

“Hur replied, “We are commissioned to follow you until we take you to Governor Ibn Ziyad, and suggested to the Imam to go towards a station which is neither Kufa nor Medina.” Imam Husain found the proposal fair and turned the caravan away from Kufa. Hur and his army marched parallel to the Imam. The two sides reached a village called Nainawa where Ibn Ziyad’s messenger (Yazid’s governor over Kufa) delivered a message to Hur. The message read, ” …force Husain to a halt. But let him stop in an open space, without vegetation or water.” Hur conveyed the contents of the letter to Imam Husain. The Imam, his family and companions defiantly resumed their journey and reached a place where another enemy force blocked their move and forced them to stop. When Imam Husain learned that the place was called Karbala, he felt he reached the destination and ordered his camp to be setup. That day was 2nd of Muharram, Hijri 61.”

সেনাধ্যক্ষ হুরের জবাবের ভাষা ও সুর আদৌ ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও আক্রোশমূলক ছিল না এবং হোসেন স্বয়ং তাঁর জবাব ও আচরণে খারাপ কিছু দেখেন নি তা ওপরের বিবরণে অত্যন্ত স্পষ্ট। যাকে হত্যা করার আদেশ থাকে তাঁর সঙ্গে সেনাধ্যক্ষরা যেরূপ আচরণ করেন সেরূপ আচরণ যে হুর করেননি তা বলাই বাহুল্য। ড.গণি ও তাঁর মতো অনেক মুসলিম ঐতিহাসিক দাবি করেছেন যে, এজিদের বাহিনী এতোটাই নিষ্ঠুর ও হৃদয়হীন ছিল যে হোসেন যখন এক ফোঁটা জলের জন্য তাদের কাছে ব্যাকুল হয়ে হাত পেতেছেন এবং পাগলের মত একজনের কাছ থেকে আর একজনের কাছে ছুটে গিয়েছেন তখন তারা অট্টহাসিতে ফেটে পড়েছেন এবং পরপর তীর ছুঁড়ে হোসেন এবং তাঁর লোকজনকে হত্যা করেছেন। কিন্তু এটা এতোবড় মিথ্যাচার যার তুলনা মেলা ভার। এই দাবি খণ্ডিত হয়ে গেছে উইকিপিডিয়ার ইতিহাসে। উইকিপিডিয়া এ প্রসঙ্গে লিখছে,

“Hussein ibn Ali told Yazid’s army to offer him single battle, and they gave him his request. He killed everybody that fought him in single battles.[53] He frequently forced his enemy into retreat, killing a great number of opponents. Hussein and earlier his son Ali al-Akbar ibn Husayn were the two warriors who penetrated and dispersed the core of ibn Sa’ad’s army (Qalb-e-Lashkar), a sign of extreme chaos in traditional warfare.

Hussein advanced very deep in the back ranks of the Syrian army. When the enemies stood between him and the tents he shouted:

“Woe betide you oh followers of Abu Sufyan ibn Harb’s dynasty! If no religion has ever been accepted by you and you have not been fearing the resurrection day then be noble in your world, that’s if you were Arabs as you claim.”[54]

Then his enemies invaded back toward him. They continuously attacked each other,[55] Until his numerous injuries caused him to stay a moment. At this time he was hit on his forehead with a stone. He was cleaning blood from his face while he was hit on the heart with arrow and he said: “In the name of Allah, and by Allah, and on the religion of the messenger of Allah.” Then he raised his head up and said: “Oh my God! You know that they are killing a man that there is son of daughter of a prophet on the earth except him.” He then grasped and pulled the arrow out of his chest, which caused heavy bleeding.[56]

He became very weak and stopped fighting. The soldiers approaching him gave up confrontation, seeing his position. One soldier, however, walked up to Hussein and hit him on his head with his sword.”

কেউ যদি নিজগুণে বড় ও মহৎ না হন, তাঁকে সেইরূপে জোর করে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে অন্যকে ছোট ও নিকৃষ্ট করতেই হয়- এটাই নিয়ম। আলি ও আলির পুত্রদের সেইরূপ বড় ও মহৎ প্রমাণ করতে গিয়ে মুসলিম ঐতিহাসিকগণ মাবিয়া ও এজিদ এবং তাঁদের অনুগামীদের অত্যন্ত ছোট, নীচ ও নিকৃষ্ট করে উপস্থাপিত করেছেন ইতিহাসের পাতায়। কিন্তু এতদ্বসত্বেও  মাবিয়া ও এজিদের মধ্যে মানুষ হিসেবে যে দোষ-ত্রুটি বা ক্ষুদ্রতাসহ যে মহৎ গুণগুলি ছিল তা ইতিহাসের পাতা থেকে মুছে দেওয়া যায় নি। বরং যাঁরা তাঁদের চরিত্রের ভাল ও মহৎ দিকগুলিকে অস্বীকার ও নস্যাৎ করতে গিয়ে তাঁদেরকে কুৎসিত ও কদর্য ভাষায় কালিমালিপ্ত করার প্রয়াস করেছেন তাঁরা নিজেরাই নিজেদের ক্ষুদ্রতা ও নীচতাকেই অনাবৃত করে ফেলেছেন তাঁদের নিজেদের অজান্তে।

গিয়াসুদ্দিন এর ব্লগ   ১৭১ বার পঠিত